There Will Be No Quota Says Prime Minister Sheikh Hasina

There Will Be No Quota. Prime Minister Sheikh Hasina said, “When there is so much about quota, there will be no quota. He does not need any quota. “He said these in the question-answer session scheduled for Wednesday (April 11th) at the Jatiya Sangsad.
Through this, Bangabandhu daughter has announced to cancel all quota of government jobs. His commentary, ‘If there is a quota, then the question of reform will come.’ Now, in the future, another party will talk about reforms again. The problem is the quota. So no quote is needed.

There Will Be No Quota

Sheikh Hasina clarified, ‘Quota system is excluded, this is my clear statement.’
Public universities and private university students blocked the streets of the capital demanding reform of quota in government jobs. That’s why the whole city has created a huge traffic jam. The general people have suffered severe sufferings. Joint general secretary of Awami League central committee Advocate Jahangir Kabir Nanak presented this topic in the parliament.
The Prime Minister said in the Parliament, “It is sad to see that the children have stopped all the studies and started to move towards the reform of the quota. They can become sick due to the burn in the heat of the sun. People can not go to the hospital due to their blockade. Can not go to the office-court properly

কোন কোটাই থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

There Will Be No Quota

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “কোটা সম্পর্কে এত কিছু থাকলেও সেখানে কোটা হবে না। কোনও কোটার প্রয়োজন নেই।” তিনি জাতীয় সংসদে বুধবার (১১ ই এপ্রিল) প্রশ্নোত্তর সেশনে এ কথা বলেন।

এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু কন্যা সরকারি চাকরির সব কোটা বাতিল করার ঘোষণা দিয়েছে। তাঁর ভাষ্য, ‘যদি কোটা থাকে, তাহলে সংস্কারের প্রশ্ন আসবে।’ এখন, ভবিষ্যতে, আরেকটি দল আবার সংস্কারের কথা বলবে। সমস্যা হল কোটা। তাই কোন উদ্ধৃতি প্রয়োজন হয়। ‘
শেখ হাসিনার ব্যাখ্যা, ‘কোটা সিস্টেম বাদ দেওয়া হয়, এটা আমার স্পষ্ট বিবৃতি।’

সরকারী চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রাজধানীর রাস্তা অবরোধ করে। সেইজন্য পুরো শহরটি বিশাল ট্রাফিক জ্যাম তৈরি করেছে। সাধারণ মানুষ গুরুতর কষ্ট ভোগ করেছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক সংসদে এই বিষয় উপস্থাপন করেন।

প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেন, “এটা দেখতে দুঃখজনক যে শিশুরা সব গবেষণা বন্ধ করে দিয়েছে এবং কোটা সংস্কারের দিকে যাচ্ছে। তারা সূর্যের তাপে জ্বলতে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে। তাদের অবরোধের কারণে হাসপাতালে যেতে হয় না। অফিস-আদালতে সঠিকভাবে যেতে পারেন না
এটা শিখেছে যে চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের জন্য দলের ফোরামে প্রধানমন্ত্রী আগেই আলোচনা করেছেন। কিন্তু সংসদে প্রথমবার তিনি এই বিষয়ে সরাসরি কথা বলেন। বুধবার (১১ ই এপ্রিল) সংসদ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্ব।



Dailyjobsbd.com © 2017